ফেসবুকের প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে টেক জায়ান্ট গুগলের চালু করা গুগল প্লাস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি ৫ লাখ অ্যাকাউন্টের তথ্য ফাঁসের ঘটনার পর গুগল এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস এখবর জানিয়েছে।

সোমবার গুগল প্লাস বন্ধের ঘোষণা দিয়ে এক ব্লগ পোস্টে কোম্পানিটি জানায়, মার্চ মাসে এই তথ্য ফাঁসের ঘটনা কোম্পানির কারিগরি কর্মকর্তারা শনাক্ত করেছেন। কিন্তু তারা বিষয়টি প্রকাশ না করার সিদ্ধান্ত নেন। কারণ কোনও অ্যাকাউন্ট বা তথ্য আক্রান্ত হওয়ার মতো কিছু পাননি তারা।

তথ্য ফাঁসের ঘটনা গোপন করায় ক্যালিফোর্নিয়া ও ইউরোপে প্রণীত নতুন আইনে ঝামেলায় পড়তে পারে গুগল। এই আইনে, তথ্য ফাঁসের ঘটনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে জানাতে হবে। গুগল প্লাস মার্চে বিষয়টি জানলেও সোমবার তা স্বীকার করেছে। এর ফলে আইনি ঝামেলার মুখোমুখি হতে পারে গুগল। যদিও ব্লগ পোস্টে কোম্পানিটি দাবি করেছে, তাদের গোপনীয়তা ও ব্যক্তিগত সুরক্ষা কার্যালয় জানিয়েছে নিরাপত্তা ইস্যু বিষয়ে অবহিত করা কোম্পানির বাধ্যবাধকতার মধ্যে পড়ে না।

গুগল দাবি করেছেন, এই দুর্বলতার সুযোগ কাজে লাগিয়ে অন্তত ৪৩৮টি অ্যাপস অ্যাকাউন্টের তথ্য দেখার সুযোগ পেয়েছে। তবে সেগুলোর কোনও অপব্যবহারের নজির তারা পাননি।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানিয়েছে, কোম্পানির এক নথিতে ফেসবুকের মতো বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ার আশঙ্কা করা হয়েছে। এ বছরের শুরুতে ফেসবুক স্বীকার ক্যামব্রিজ অ্যানলাইটিকা ৮৭ মিলিয়ন ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে। এই ঘটনায় ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গকে দুইদিন কংগ্রেশনাল শুনানির মুখোমুখি হতে হয়।

২০১১ সালে গুগল প্লাস যাত্রা শুরু করে। দ্রুতই এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক মাধ্যম ফেইসবুকের সঙ্গে পাল্লা দিতে গুগলের ব্যর্থ চেষ্টা হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে। গত কয়েক বছর ধরেই ধারণা করা হচ্ছিল এই প্ল্যাটফর্মটি শেষ অবধি বন্ধই করে দেওয়া হবে। এবার গুগল এই প্ল্যাটফর্ম একেবারেই বন্ধ করতে যাচ্ছে- এমনটাই বলা হয়েছে বিবিসি’র প্রতিবেদনে

এই খবর প্রকাশের পর গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেটের শেয়ারমূল্য ১.২৩ শতাংশ পড়ে যায়।

কমেন্ট করে সাথেই থাকুন